কাঁচা মরিচে আগুন, ঝাঁজ বেড়েছে পেঁয়াজে

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : সপ্তাহের ব্যবধানে লাগামহীনভাবে বেড়েছে কাঁচা মরিচ ও পেঁয়াজের দাম। এছাড়া বাড়তি আরও কিছু নিত্যপণ্যের দাম। গত সপ্তাহের তুলনায় কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে  ৩০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত। কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে পেঁয়াজের দামও।

বিশেষ কোনো কারণ ছাড়াই বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। গত সপ্তাহে পণ্যটির দাম কেজিতে ১০০ থেকে ১২০ টাকার মধ্যে থাকলেও শুক্রবার তা বিক্রি হয়েছে ১৬০ টাকায়। তবে অপেক্ষাকৃত একটু সাদা (ঝাঁজ কম) কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকায়।

দামের ঊর্ধ্বগতি সম্পর্কে পুরনো গীত গাইলেন কমলাপুর বাজারের বিক্রেতা নিজাম। তিনি বলেন, “সরবরাহ কম থাকায় পাইকারী বাজারে দাম বেশি, তাই বেশি বিক্রি করছি, এর বাইরে জানি না”।

অন্যদিকে, খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি পেঁয়াজ (আমদানি) বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা।  দেশি পেঁয়াজ ৬০ টাকা, যা গত সপ্তাহের চেয়ে ৫ টাকা বেশি। এছাড়া দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, ভারতীয় রসুন ৯০ টাকা, দেশি আদা ১৬০ টাকা, শুকনা মরিচ ১৪০ টাকা, দেশি মশুর ডাল ১৩০ টাকা, ভারতীয় মশুর ডাল ৯০ টাকা, খেসারি ডাল ৫৫ টাকা, মাসকলাই ১৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

ভোজ্য তেলের মধ্যে সয়াবিন (সিটি) তেল  (খোলা) ৯০ টাকা লিটারপ্রতি, বোতলজাত (রুপচাদা) ১০৮ টাকা লিটারপ্রতি, ৫ লিটারের বোতল ৪৯০ টাকা।

গত সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে কয়েকটি সবজির দাম। কেজিপ্রতি আলু ২৮ টাকা, শশা ৪০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, গাজর ৪৫ টাকা, করলা ৬০ টাকা, ঢেড়স ৬০ টাকা, বেগুন (গোল) ৬০ টাকা, টমোটো ৮০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, বরবটি ৬০ টাকা, পেঁপে ৪০ টাকা, কাঁকরোল ৬০ টাকা, কচুর লতি ৪০ টাকা, লেবু (হালি) ২০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বাজারে লালশাক, ডাটা, পুঁইশাকের আঁটি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা করে।

চালের মধ্যে মিনিকেট কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪২ থেকে ৪৬, নাজির শাইল ৪২ থেকে ৪৪, পারি চাল ৪০ টাকা, বিআর আটাশ ৪০ টাকা, স্বর্ণা ৩৮ টাকা, লতা ৩৮ বিক্রি, চিনিগুরা ৮৪ টাকা।

মাছের মধ্যে মাঝারি আকারের জোড়া ইলিশ ১ হাজার ২০০ টাকা, চিংড়ি ৬ শ’ টাকা, কেজিপ্রতি রুই ৩২০ টাকা, কাতলা ৩৫০টাকা, তেলাপিয়া ২০০ টাকা, কৈ (চাষের) ৩০০ টাকা, সিলভার ১৩০ টাকা, পাঙ্গাস ১২০ টাকা, টেংরা ৩৬০ টাকা, শোল মাছ ৪৭০, কাচকি মাছ ৩২০ টাকা, শিং (দেশি) ৪৩০ টাকা।

মাংসের মধ্যে গরুর মাংস কেজিপ্রতি ৪২০ টাকা, খাসির মাংস ৫০০-৫২০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ১৭০ টাকা, লেয়ার মুরগি ১৬০ টাকা, দেশি মুরগি ২৫০-৩৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্রতি হালি মুরগির ডিম (ফার্ম) ৩৮ টাকা, দেশি হাঁসের ডিম ৪৩ টাকা।

শনিরআখড়া বাজারের ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান জানান, বাজারে পণ্যে দাম অনেকটা স্থিতিশীল রয়েছে। ভারতীয় বাজারে বাড়ার কারণে পেঁয়াজ মরিচসহ কয়েকটি পণ্যের দামে কিছুটা প্রভাব ফেলেছে। অনেক দোকানিরা মহল্লাভেদে নিজের ইচ্ছেমতো দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন।