ছিটমহল বিনিময়: ট্রাভেল পাস পাননি পাটগ্রামের ১১ জন

প্রকাশিত

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাটের ভেতরের ভারতীয় সাবেক ছিটমহল থেকে ভারতে যেতে ইচ্ছুকদের বিশেষ ট্রাভেল পাস দেওয়া হয়েছে। সোম ও মঙ্গলবার দুইদিনে লালমনিরহাটের ১৯৫ জন নারী-পুরুষের মধ্যে ১৮৪ জন বিশেষ ট্রাভেল পাস পেয়েছেন। তবে ট্রাভেল পাস প্রত্যাশী পাঁচজনের নামের বানান ভুল থাকায় এবং ভারতীয় হাই কমিশন থেকে ছয়জনের বিশেষ ট্রাভেল পাস ইস্যু না হওয়ায় ১১ জন নারী-পুরুষ এই ট্রাভেল পাস পাননি।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ভেতরে থাকা ভারতীয় সাবেক ১৩৫ ও ১৩৬ নম্বর গোতামারী ছিটমহল থেকে ৬২ জন নারী-পুরুষ ভারতীয় নাগরিকত্ব বহাল রাখার আবেদন করে। একইভাবে পাটগ্রাম উপজেলার ভেতরে থাকা ভারতীয় সাবেক ছিটমহলগুলো থেকে ১৩৩ জন নারী-পুরুষ ভারতীয় নাগরিকত্ব বহাল রাখার আবেদন করে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে এসব নারী-পুরুষকে চূড়ান্তভাবে ভারতে নিয়ে যেতে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশন থেকে বিশেষ ট্রাভেল পাস ইস্যু করে সোমবার ও মঙ্গলবার তা বিতরণ করা হয়। ভারত আসা-যাওয়া করার জন্য এসব ট্রাভেল পাস হাতীবান্ধা উপজেলার ৬২ জন পেলেও পাটগ্রাম উপজেলার ১৩৩ জনের মধ্যে ১১ জন পাননি। মঙ্গলবার বিকেল ৫টার পর ট্রাভেল পাস দেওয়া বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

পাটগ্রাম উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) টিএমএ মোমিন বলেন, ‘ভারতীয় হাই কমিশন থেকে ছয়জনের ট্রাভেল পাস ইস্যু না হওয়ায় তাদেরকে পাস দেওয়া সম্ভব হয়নি। এছাড়া অন্য পাঁচজনের বানান সংক্রান্ত ত্রুটি থাকায় ট্রাভেল পাস দেওয়া হয়নি।’

আগামী ১০ দিনের মধ্যে ওই ১১ জনের ট্রাভেল পাস দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক হাবিবর রহমান বলেন, হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তরগোতামারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাটগ্রাম উপজেলার জোংড়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গন থেকে উভয় দেশের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ভারতে যেতে ইচ্ছুকদের মধ্যে ১৮৪ জনকে বিশেষ ট্রাভেল পাস দেওয়া হয়েছে। অবশিষ্ট ১১জনকে কয়েক দিনের মধ্যে ট্রাভেল পাস দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ভারতীয় সংসদে স্থলসীমান্ত চুক্তি বিলটি পাস হলে চলতি বছরের ৩১ জুলাই মধ্য রাতে ভারত-বাংলাদেশের ভেতরে অবস্থিত ১৬২ ছিটমহল বিনিময় হয়। এর আগে একই মাসের ৬-১৬ জুলাই পর্যন্ত উভয় দেশের সরকার যৌথভাবে হালনাগাদ জনগণনায় লালমনিরহাট লালমনিরহাটের ভেতরে থাকা ৫৯টি ছিটমহলের মধ্যে সাতটি ছিটমহলের ১৯৫ জন ভারতের নাগরিকত্ব বহাল চেয়ে আবেদন করেন। আগামী মাসের ৩০ নভেম্বরের মধ্যে এসব ব্যক্তিকে ভারতে চলে যেতে হবে। ভারতে এসব নাগরিকের জন্য সরকারি বাড়ি ও নগদ টাকা দেওয়ার কথা রয়েছে। তবে এসব ব্যক্তি স্থাবর সম্পত্তি বিক্রি করার ক্ষেত্রে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করে বিক্রি করতে পারবেন বা হস্তান্তর করতে পারবেন।

শেয়ার করুন