বরিশাল মেহেন্দিগঞ্জে চাল বিতরণের আগে চুরির অভিযোগ

প্রকাশিত

বিশেষ প্রতিনিধি: ঈদ উপলক্ষে দেশব্যাপী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ বরাদ্ধের বিজিএফ এর চাল বিতরণ করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার কাজিরহাট থানার অন্তগত ১৫নং জয়নগর ইউনিয়নে চাল বিতরণের আগেই চেয়ারম্যান মনির হোসেন হাওলাদার এর বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিযুষ চন্দ্র দে সাক্ষরিত ডিউ লেটারে (১২/০৭/২০ইং) ১৫নং জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদের জন্য বরাদ্দকৃত ২৯.৯৪ মেট্রিক টন চাউল এর ছাড়পত্রসহ নির্ধারিত চাউল নিয়ে একটি ট্রলার যোগে মেহেন্দিগঞ্জ থেকে জয়নগর ইউনিয়নের রহমানের হাট এলাকায় পৌছালে মিডিয়া কর্মীসহ কাজিরহাট থানার এস.আই টিপু ও এস আই মনির ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন।

ট্রলারের মাঝি এবং ট্রলারে থাকা চাউল পরিবহনের নিরাপত্তায় থাকা গ্রাম পুলিশের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ট্রলারে ২৫ টন চাল রয়েছে বলে জানান।

চাল আটকের খবর জানাজানি হওয়ার পর চেয়ারম্যান মনির হাওলাদার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন এবং সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য বলেন, ট্রলারে চাউল রয়েছে ২৬ টন। সাংবাদিক দের প্রশ্নের জবাবে চেয়ারম্যান জানান ট্রলার ছোট হওয়ার কারনে তিনি বাকি চাউল আনতে পারেননি বাকি চাল তার হেফাজতে রয়েছে এবং আগামীকাল নিয়ে আসবেন বলে জানান।

অথচ ট্রলার মাঝি বলেন তার ট্রলারে ৩০ টন পরিবহনের সক্ষমতা রয়েছে।

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিযুষ চন্দ্র দে মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের বলেন, চেয়ারম্যান মনির হাওলাদার ডিউ লেটার অনুযায়ী পুরো চাউল গোডাউন থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে গেছেন।

বরিশাল জেলার কাজীরহাট থানাধীন ১৫নং জয়নগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনির হোসেন হাওলাদারের চাল বিতরণে বার বার অনিয়ম।

ঈদ উল-আযহা উপলক্ষে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া চাল ১৫নং জয়নগর ইউনিয়নের বরাদ্ধ হয়েছিলো। ২৯.৯৪ মে:টন চাল সরকারী ভাবে বরাদ্ধ হয়েছে। কিন্তু চেয়ারম্যান ডিও অনুযায়ী চাল উত্তোলন করে ৪.৯৯৪ মে: (প্রায় ৫ টন) টন চাল বিক্রি করে ২৫টন চাল জনগণের মাঝে বিতরণের জন্য জয়নগরে আনেন। ঐ মুহুর্তে গোপণ সংবাদের ভিত্তিতে কাজীরহাট থানা পুলিশ এবং একাধিক টিভি চ্যানেলের সাংবাদিকগণ চালবাহী টলার আটকের পর সরেজমিনে প্রমাণসহ চেয়ারম্যান মনির হোসেন হাওলাদারের সাক্ষাতকার গ্রহণ করেন এবং গ্রহণকৃত সাক্ষাতকারটি একাধিক সোশ্যাল মিডিয়া, অনলাইন, প্রিন্ট পত্রিকায় প্রকাশিত হয় এবং টিভি চ্যানেলে প্রকাশের জন্য আরো তথ্য সংগ্রহ চলছে।

উল্লেখ্য, ১৫নং জয়নগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনির হোসেন হাওলাদার ২০১৯ সালের ১০ই এপ্রিল জেলে কার্ডের চাল চুরি করার সময় ৯৬ বস্তা চালসহ মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিপক কুমার রায় এবং কাজীরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিসুল ইসলামের কাছে হাতেনাতে ধরা পড়লেও আইনের বিভিন্ন ফাক ফোকর এবং উপর মহলের বিভিন্ন তদবীরে ছাড় পেয়ে যান তিনি। কিন্তু উৎসুক জনতার আইওয়াসের জন্য প্রাথমিকভাবে চেয়ারম্যান মনির হোসেন হাওলাদারের বাড়িতে চাল রাখার দায়ে তার বাড়িটি সিলগালা করে দেওয়া হয়। তখনও দেশের শীর্ষস্থানীয় একাধিক জাতীয় দৈনিক এবং স্থানীয় অর্ধশতাধিক প্রিন্ট এবং পোর্টাল নিউজ প্রকাশিত হলেও খুটির জোরে কিচ্ছু হয়নি চেয়ারম্যান মনির হোসেন হাওলাদারের। অসহায় দুস্থ গরীব জেলেদের জন্য বরাদ্ধকৃত চাল থেকে তখনো বঞ্চিত হয়েছে জেলেরা।

পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিযুষ চন্দ্র দে কে ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এমতাবস্থায় চেয়ারম্যান মনির হাওলাদার কাজিরহাট থানার এস আই টিপু ও মনির দ্বয়ের সামনে আগামীকাল সকাল অবশিষ্ট চাউল এনে এলাকায় বিতরন করবেন বলে প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন।

শেয়ার করুন