মুক্তি পাচ্ছে চার ছবি, লড়াই হবে দুটিতে

প্রকাশিত

বিনোদন প্রতিবেদক : দেশীয় চলচ্চিত্রের অক্সিজেন মাস্ক হিসেবে ধরা হয় দুই ঈদ উৎসবকে। তাই বরাবরই এই দুই ঈদকে কেন্দ্র করে ছবি মুক্তির প্রতিযোগিতা চলে আসছে। আগে কম করে হলেও প্রতি ঈদে হাফ ডজন করে নতুন ছবি মুক্তি পেত। কোনও একসময় তো একসঙ্গে রের্কড সংখ্যক ১৬টি ছবিও মুক্তি পেয়েছিল। যদিও সেসব এখন ইতিহাস। নিয়মিত প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ হওয়া, তামিল-হিন্দি ছবির গল্প-গান-অ্যাকশন নকল করা আর মধ্যবিত্ত্ব শ্রেণির দর্শকদের হল বিমুখতায় দেশীয় চলচ্চিত্রের এখন বেহাল দশা।

তাই তো গত কয়েক বছর ধরে ঈদ উৎসবেও তেমন আমেজ চলচ্চিত্র শিল্পে নেই। দেশের নায়ক আর সিনেমা হল সঙ্কটের কারণে খুব বেশি ছবি ঈদে মুক্তি পায় না। আগ্রহ থাকলেও অনেক প্রযোজক পরিবেশক ঈদে ছবি মুক্তি দিতে পারেন না

এখন রাজধানী ঢাকা শহরে সম্পূর্ণ ডিজিটাল প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা মাত্র ১৬টি। এর মধ্যে মাত্র ৪টি প্রেক্ষাগৃহে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়। অন্যদিকে সারা দেশে প্রজেক্টর নির্ভর প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা প্রায় ২০০টি। দুই ঈদ, বাংলা নবর্বষে বন্ধ থাকা একশ’র কাছাকাছি প্রেক্ষাগৃহ স্বল্প সময়ের জন্য চালু হয়। তারপর আবার বন্ধ হয়ে যায়। এর কারণ, দর্শক সংকট। আর দর্শক সংকটের কারণ, মানহীন চলচ্চিত্র। ডিজিটাল সিনেমার নামে ভিডিও ফিল্মের আধিক্য দর্শককে হল বিমুখ করে ফেলেছে। ফলে শত ইচ্ছা থাকা সত্বেও অনেক প্রযোজক পরিবেশক ঈদে তাদের ছবি মুক্তি দিতে পারেন না। পরিবেশক এবং তাদের প্রতিনিধি বুকিং এজেন্টদের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে সবকিছু।

আর এই কারণে ঈদে কোনও ছবি শতাধিক প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়, কোনওটা ৩০টি প্রেক্ষাগৃহে। গত রোজার ঈদে ৫টি ছবি ঈদে মুক্তি পেয়েছিল। হতাশার বিষয়, এবারের ঈদে ছবির সংখ্যা আরও কমেছে। সংখ্যার বিচারে ৪টি হলেও মূলত বাণিজ্যিক লড়াই হবে দুটি ছবির মধ্যে। ছবি দুটি হচ্ছে বাংলাদেশ ভারতের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘আশিকী’ এবং বদিউল আলম খোকন পরিচালিত ‘রাজাবাবু’। বাংলাদেশের জাজ মাল্টিমিডিয়া এবং ভারতের এসকে প্রোডাকশনের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত অশোকপতি ও আব্দুল আজিজ পরিচালিত ‘আশিকী’ ছবির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মৌসুমী, ফারিয়া, অংকুশ, রজত দত্ত, রেবেকা প্রমুখ।

বদিউল আলম খোকন পরিচালিত ‘রাজাবাবু’র বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাকিব খান, অপু বিশ্বাস, ববি, শাহনুর, শানুশিবা, দিতি ও উজ্জল। এই দুই ছবির সফলতা-বিফলতার মধ্যে নির্ভর করবে নবাগতা নুসরাত ফারিয়ার আগামী নির্ধারণ এবং শাকিব খানের বর্তমান শীর্ষ অবস্থানে টিকে থাকার বিষয়টি।

আর ঈদের অন্য দুটি ছবি হচ্ছে, অভিনেতা শাহরিয়ার নাজিম জয় পরিচালিত ‘প্রার্থনা’ এবং বেশ কিছু আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব থেকে পুরস্কৃত-প্রশংসিত আশরাফ শিশিরের ‘গাড়িওয়ালা’। ছবি দুটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির পাশাপাশি  ঈদে ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হবে চ্যানেল আইতে। ‘প্রার্থনা’য় অভিনয় করেছেন, তৌকীর আহমেদ, মৌসুমী নাগ, জারা, নওশীন, কল্যাণ ও শাহরিয়ার নাজিম জয়। আর গাড়িওয়ালা’য় অভিনয় করেছেন রোকেয়া প্রাচী ও রাইসুল ইসলাম আসাদের পাশাপাশি অভিনয় করেছে একঝাঁক শিশুশিল্পী। তারা হলো মারুফ, কাব্য, অর্ণব, স্বপ্ন, কিন্নর ও ঋদ্ধ। আরও অভিনয় করেছেন মাসুম আজিজ, ইমরান, ফারুক, মোসলেম, আর জে মুকুল, সাকি ফারজানা, সিডর সুমন, সাজ্জাদ লিটন, মুক্তা, সম্রাট, জগন্ময় পালসহ ৪০০ নাট্যকর্মী।
অতীত তথ্য মতে, সম্ভবত এবারের ঈদেই প্রথম ঘটতে যাচ্ছে নতুন কিছু। যে ঈদে সবচেয়ে কম ছবি মুক্তি পাচ্ছে। চলচ্চিত্র ব্যবসায়িরা এ বিষয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। কারও মতে কম ছবি মুক্তি পেলে ব্যবসা ভালো হবে। কেউ বলছেন, ঈদ উৎসবে ছবি মুক্তির এমন সংকট ব্যবসায়ে বিরুপ প্রভাব ফেলবে। তাদের কথা, যে এলাকায় পাশাপাশি ৩টি প্রেক্ষাগৃহ রয়েছে তাদের মধ্যে দুটি নতুন ছবি প্রদর্শনের সুযোগ পাবে।

প্রসঙ্গত, এই ঈদে আরও দুটি ছবি মুক্তির প্রায় সকল প্রস্তুতি নিয়েও শেষ পর্যায়ে মুক্তির মিছিল থেকে নাম প্রত্যাহার করে নেয় সংশ্লিষ্টরা। ছবি দু’টি হলো শাফি উদ্দিন শাফির ‘পূর্ণ দৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী টু’ ও রফিক শিকদারের ‘ভোলা তো যায় না তারে’।

শেয়ার করুন