লঘুচাপে সেন্টমার্টিনে আটকা পড়েছে শতাধিক পর্যটক

প্রকাশিত

কক্সবাজার প্রতিনিধি : লঘুচাপের প্রভাবে সাগর উত্তাল হয়ে পড়ায় কক্সবাজারে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন দ্বীপ নৌপথে বৃহস্পতিবার থেকে পর্যটকবাহী জাহাজ ও ট্রলার চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে সেন্টমার্টিন দ্বীপে ভ্রমণে আসা প্রায় শতাধিক পর্যটক আটকা পড়ার খবর পাওয়া গেছে। গত বুধবার জাহাজ ও ট্রলার নিয়ে পর্যটকগুলো সেন্টমার্টিনে ভ্রমণে গেলে সেখানে আটকা পড়েন তারা। তবে কতজন পর্যটক জাহাজ-ট্রলারে করে সেন্টমার্টিন ভ্রমণে গেছেন এবং কতজন ফেরত এসেছেন কোনও সঠিক তথ্য নেই প্রশাসনের কাছে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিস সূত্র জানায়, লঘুচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি থেকে নিরাপদে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি সিন্দাবাদের ব্যবস্থাপক মো: শাহ আলম জানান, সাগর উত্তাল থাকায় বৃহস্পতিবার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। ভ্রমণে আসা ৩০ জন পর্যটক সেন্টমার্টিনে আটকা রয়েছে বলে দাবি তার। সাগর স্বাভাবিক হয়ে গেলে তাদের ফিরিয়ে আনা হবে।

তিনি আরও বলেন, গত বুধবার সকালে আড়াই শতাধিক পর্যটক নিয়ে জাহাজ কেয়ারি সিন্দাবাদ সেন্টমাটিনে গেলে ২০০ পর্যটক নিয়ে রাতে টেকনাফে জাহাজটি ফেরত আসে। পাশাপাশি সেন্টমার্টিনে ভ্রমণে আসা প্রায় ২ শতাধিক পর্যটকের টিকেট ফেরত দেওয়া হয়েছে।

সেন্টমার্টিন দ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নূরুল আমিন জানান, গত দুদিন ধরে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ ও ট্রলার বন্ধ রয়েছে। ভ্রমণে আসা প্রায় শতাধিক পর্যটক সেন্টমার্টিনে আটকা রয়েছে। এ রুটে চলাচল স্বাভাবিক হয়ে গেলে তারা ফেরত যেতে পারবে। আটকে পড়া পর্যটকরা দ্বীপের হোটেল ও কটেজে রয়েছেন।

এ ব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো.কবির হোসেন জানান, বৈরী আবহাওয়ার কারণে সেন্টমার্টিনে কিছু পর্যটক আটকা পড়েছে। পুলিশ তাদের খোঁজখবর রাখছেন। তারা সুস্থ ও ভাল আছেন।

এ রুটে জাহাজ ও ট্রলার চলাচল স্বাভাবিক হলে তারা ফেরত আসতে পারবে।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহ মুজাহিদ উদ্দিন জানান, বৈরী আবহাওয়ায় টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটের সব ধরনের চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। অবস্থা স্বাভাবিক হয়ে গেলে চলাচল খুলে দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন