সিরিয়ায় নো-ফ্লাই জোন বানাচ্ছে রাশিয়া !

প্রকাশিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাশিয়া কোনওরকম আগাম ঘোষণা না করেই সিরিয়ার এক বিশাল অঞ্চল-সহ আশেপাশে ‘নো-ফ্লাই জোন’ বা উড্ডয়ন-নিষিদ্ধ অঞ্চল গড়ে তুলছে। একটি ইজরায়েলী সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার ওয়েবসাইট এই তথ্য ফাঁস করেছে। তাদের দাবি, রাশিয়ার গড়ে-তোলা এইসব উড্ডয়ন-নিষিদ্ধ অঞ্চলগুলোর মধ্যে  রয়েছে গোলান পার্বত্য ভূমি, তুরস্কের দক্ষিণাঞ্চল ও সাইপ্রাস।

সিরিয়ায় আইএস জঙ্গিঘাঁটির উপর ব্যপক বিমান হামলা শুরু করেছে রাশিয়া। ফলে আইএস-সহ সিরিয়ার আসাদ সরকার-বিরোধী জঙ্গি গোষ্ঠীগুলির বহু জঙ্গি নিহত হয়েছে। এই অবস্থায় রাশিয়া এই অঞ্চলে নো-ফ্লাই জোন বা উড্ডয়ন-নিষিদ্ধ অঞ্চল গড়ে তোলায় জঙ্গিদের অবস্থা আরও শোচনীয় হয়ে পড়ল। এ ছাড়াও রাশিয়া সিরিয়ার লজাকিয়া বন্দরে ‘মস্কোকাভা’ নামের একটি ডেস্ট্রয়ারে ৬৪টি বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত ‘এস-থ্রি হান্ড্রেড’ নামের অত্যাধুনিক সিস্টেম মোতায়েন করেছে। ফলে সিরিয়ার আকাশে বিমান হামলা চালাতে হলে তুরস্ক, ব্রিটেন, ইজরায়েল ও জর্ডনকে রাশিয়ার সঙ্গে সমঝোতা করতে হবে। তা না হলে তাদের জঙ্গি বিমানগুলো যে কোনো সময় ভূপতিত হতে পারে।

কেবল স্টেলথ জঙ্গি বিমান অত্যাধুনিক রেডার ও ক্ষেপণাস্ত্র-সজ্জিত বিমান এই রুশ সিস্টেমকে ফাঁকি দিতে সক্ষম। তুরস্কে মোতায়েন মার্কিন জঙ্গি বিমানগুলি হল এফ-সিক্সটিন মডেলের। অন্যদিকে তুরস্ক, জর্ডন, ব্রিটেন ও ইজরায়েলের কাছে এই রেডার এড়ানোর মত স্টেলথ বা উন্নত জঙ্গি বিমান নেই। ওয়েবসাইটটির দাবি, নো-ফ্লাই জোন বা উড্ডয়ন-নিষিদ্ধ অঞ্চল গড়ে তোলা ও সিরিয়ায় এস-৩০০ মোতায়েনের কারণে রুশ বিমান হামলার পরিধি ও তীব্রতা বেড়ে যাবে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, রাশিয়ার এইসব পদক্ষেপের কারণে সিরিয়াকে টুকরো টুকরো করার ও ইজরায়েল-বিরোধী সংগ্রামের অন্যতম প্রধান ফ্রন্টের নেতা হিসেবে খ্যাত প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করার যে স্বপ্ন পাশ্চাত্য দেশগুলি দেখছিল তা মরীচিকায় পরিণত হয়েছে।  এ অবস্থায় রাশিয়ার সঙ্গে প্রতিক্রিয়াশীল এই জোটের সরাসরি সামরিক সংঘাতও বেধে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন কেউ কেউ।

রাশিয়ার বিমানগুলি যদি সিরিয়ায় আইএস জঙ্গি ছাড়াও সিআইএ-র সমর্থিত অন্যান্য জঙ্গি বা কথিত ‘মধ্যপন্থী’ বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর উপর হামলা চলায় তাহলে ওয়াশিংটনকেও প্রতিশোধমূলক হামলা চালাতে হবে বলে পরামর্শ দিয়েছেন প্রাক্তন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ব্রেজনস্কি। এইসব গোষ্ঠী রাশিয়া ও তার আঞ্চলিক মিত্র শক্তিগুলির হামলায় পুরোপুরি নির্মূল হয়ে যেতে পারে বলে পাশ্চাত্য ও আরব প্রতিক্রিয়াশীল সরকারগুলো আশঙ্কা করছে।

শেয়ার করুন