মুসলমানদের জেগে ওঠার আহ্বান মোহাম্মদ আলীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সন্ত্রাস ও পথভ্রষ্ট জঙ্গীদের বিরুদ্ধে প্রকৃত মুসলমানদের জেগে ওঠার আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের মুষ্টিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী।  কিংবদন্তি এই মুষ্টিযোদ্ধা বলেছেন, ব্যক্তিস্বার্থ হাসিলের জন্য যারা ইসলামকে ব্যবহার করছে মুসলিম হিসেবে আমাদের তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে। তাদের এই কাজ করতে দেওয়া যাবে না। যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্পের মুসলিম বিদ্বেষী বক্তব্যের সমালোচনায় এই মন্তব্য করলেন তিনবারের এই বিশ্ব হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন।

মোহাম্মদ আলী গত বুধবার ১৩২ শব্দের একটি বিবৃতি দিয়েছেন বলে যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়। বিবৃতিতে ট্রাম্পের নাম উল্লেখ না করে আলী বলেন, ‘আমি একজন মুসলিম। মুসলমান হিসেবেই আমি বলছি, প্যারিস, সান বার্নার্ডিনো অথবা বিশ্বের যেকোনো জায়গায় নিষ্পাপ মানুষকে হত্যায় ইসলামিক কিছু নেই। সত্যিকারের মুসলমানরা জানে তথাকথিত ইসলামি জিহাদিদের নির্দয় আচরণ ও সহিংসতা ইসলামের  ধারণার সম্পূর্ণ বিপরীত।’

বিবৃতিতে আলী আরো বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি ইসলাম ধর্মকে সবার কাছে বোধগম্য করার কাজে ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নেতাদের তাঁদের অবস্থানকে ব্যবহার করা উচিত এবং এসব পথভ্রষ্ট খুনিরা (চরমপন্থী) যেভাবে প্রকৃত ইসলামকে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করছে তা সঠিকভাবে জানানো উচিত। মুসলমানদের নিজের স্বার্থেই জেগে উঠতে হবে।’

উল্লেখ্য ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে গত নভেম্বরে আইএস সন্ত্রাসীদের হামলার পর অভিযোগের তীর ওঠে মুসলমানদের দিকে। এরপর ২ ডিসেম্বর ক্যালিফোর্নিয়ার সান বের্নার্ডিনো শহরের একটি প্রতিবন্ধী সেবা কেন্দ্রে গুলি চালিয়ে ১৪ জনকে হত্যার ঘটনায় যে তরুণ দম্পতিকে দায়ী করা হচ্ছে, তারা দুজনেই মুসলমান। তারা দুজনেই আইএসের অনুসারী ছিলেন বলে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি দল আইএস দাবি করেছে।

এই ঘটনার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের প্রবেশ সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প। তাঁর এই মন্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বব্যাপী ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

নির্বাচনী প্রচারে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, “আমেরিকানদের প্রতি মুসলমানদের ‘ঘৃণা’ পুরো জাতিকেই ঝুঁকিতে ফেলে দিতে পারে। তিনি বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের প্রতিনিধিরা নিশ্চিত না হন আসলে কী ঘটছে, ততক্ষণ পর্যন্ত মুসলমানদের জন্য সীমান্ত বন্ধ রাখা উচিত।” তাঁর এই বক্তব্যের সমালোচনা করে এটিকে অ-মার্কিনসুলভ বক্তব্য বলে অভিহিত করেছে হোয়াইট হাউজ। একই সঙ্গে তাঁকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার অযোগ্য বলে দাবি করেছে পেন্টাগন।

এদিকে আলীর মুখপাত্র রবার্ট গানেল জানান, আলীর এই বিবৃতি ট্রাম্পের মন্তব্যের ‘সরাসরি প্রতিক্রিয়া’ নয়। আলী বিশ্বাস করেন প্রকৃত মুসলমানরা কখনোই চরমপন্থী জিহাদিদের দৃষ্টিভঙ্গিতে বিশ্বাস করে না। তারা এই পথভ্রষ্টদের অবশ্যই প্রত্যাখ্যান করবে বলে বিশ্বাস করেন আলী। এই বিবৃতি আলীর সেই বিশ্বাসেরই প্রতিফলন।

গার্ডিয়ান জানিয়েছে, মোহাম্মদ আলী ১৯৬৪ সালে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। পরে তিনি সুন্নি মতবাদের অনুসারী হন।