রেটিং পয়েন্ট কমলেও অবস্থান বদলায়নি বাংলাদেশের

স্পোর্টস ডেস্ক : ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) পয়েন্ট তালিকা অনুযায়ী বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওডিআই র‍্যাংকিং এক রেটিং পয়েন্ট কমেছে। তবে তালিকায় আগের অবস্থান ধরে রেখেছে মাশরাফিবাহিনী।

আইসিসির সংশোধিত ওয়ানডে র‍্যাংকিং আজ সোমবার প্রকাশিত হয়েছে। ২০১৪ সালের পর থেকে দলগুলোর পারফরম্যান্সে ওপর ভিত্তি করে সাজানো এই র‍্যাংকিংয়ে নিজেদের অবস্থান ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। তালিকার ৭ নম্বরে আছে টিম টাইগার। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে মাশরাফিবাহিনীর রেটিং পয়েন্ট কমেছে।

শ্রীলঙ্কা সফর শেষে বাংলাদেশের রেটিং পয়েন্ট ছিল ৯২। আজকের আইসিসির সংশোধিত ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়ে মাশরাফিবাহিনীর রেটিং দেখানো হয়েছে ৯১।

ICC Rankings

এছাড়া অন্যান্য প্রায় সব দলের রেটিং পয়েন্টে পরিবর্তন হলেও অবস্থান পরিবর্তন হয়েছে শুধু ভারত ও নিউজিল্যান্ডের। তৃতীয় স্থানে থাকা কিউই দলকে হটিয়ে ওই অবস্থান দখল করেছে ভারত; দলটির রেটিং পয়েন্ট ১১৭। আর চতুর্থ স্থানে নেমেছে নিউজিল্যান্ড; রেটিং পয়েন্ট ১১৫।

ওডিআই র‍্যাংকিং তালিকার শীর্ষে আছে দক্ষিণ আফ্রিকা; দলটির রেটিং পয়েন্ট ১২৩। ১১৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে অস্ট্রেলিয়া। তার চেয়ে মাত্র এক পয়েন্ট কম নিয়ে অর্থাৎ ১১৭ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে ভারত। ১১৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে নিউজিল্যন্ড।

ওডিআই তালিকায় পঞ্চম থেকে যথাক্রমে দ্বাদশ স্থানে আছে ইংল্যান্ড (১০৯), শ্রীলঙ্কা (৯৩), বাংলাদেশ (৯১), পাকিস্তান (৮৮), ওয়েস্ট ইন্ডিজ (৭৯), আফগানিস্তান (৫২), জিম্বাবুয়ে (৪৬) এবং আয়ারল্যান্ড (৪৩)।

বাংলাদেশ, আয়ারল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডকে আয়ারল্যান্ডে আয়োজিত ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং আসন্ন চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তেমন ভরাডুবি না হলে ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সরাসরি অংশগ্রহণ প্রায় নিশ্চিত। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের কাট অফ সময়ের আগে প্রথম আট দলই সুযোগ পাবে ২০১৯ এর ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে।

প্রতি বছর এই সময়ে র‍্যাংকিং সংশোধন করে আইসিসি। সর্বশেষ ৩ বছরের পয়েন্ট নিয়ে এ তালিকা করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী, ২০১৬ সালের মে থেকে খেলা ম্যাচগুলোর অর্জিত পয়েন্টের শতভাগ এবং এর আগের দুই বছর অর্থাৎ ২০১৪ সালের মে থেকে ২০১৬ সালের এপ্রিল মেয়াদের ম্যাচগুলোর অর্ধেক পয়েন্ট নেওয়া হয়েছে।

২০১৫ সালে ওডিআইতে অবিস্মরণীয় সাফল্য পেয়েছিল বাংলাদেশ। সেই সময়ের পাওয়া পয়েন্টের অর্ধেক যোগ হয়েছে এবার। ফলে বাংলাদেশের রেটিং পয়েন্ট কমেছে।