ইউজিসি কর্মকর্তার মৃত্যুর বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রশ্নপত্র ফাঁস আর চুরি-ডাকাতির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। এই অপরাধের মাধ্যমে একটি জাতিকে পঙ্গু করে দেওয়া যায়। মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের বড় প্রমাণ হচ্ছে র‍্যাবের হেফাজতে ইউজিসি কর্মকর্তা খুন। এ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করতে হবে।

আজ শুক্রবার বিকেলে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা পুনরায় গ্রহণ এবং প্রশ্নপত্র ফাঁসের সসঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে সংহতি সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন।

এ সময় পুনরায় মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ আন্দোলনের সমন্বয়ক খালেদ সাইফুল্লাহ নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

গত বৃহস্পতিবার রাতে র‍্যাবের হেফাজতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সহকারী পরিচালক ওমর সিরাজের মৃত্যু হয়। পরিবারের দাবি, তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তবে র‍্যাবের দাবি, হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ওমর।

মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ আন্দোলনের সমন্বয়ক খালেদ সাইফুল্লাহ নতুন কর্মসূচির ঘোষণা অনুযায়ী, প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে মেডিকেল ও ডেন্টাল পরীক্ষা পুনরায় নেওয়ার দাবিতে আগামীকাল শনিবার সকাল ১০টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, আলোকচিত্র ও ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন হবে। পরদিন প্রধানমন্ত্রী বরাবর এসব স্বাক্ষর সংবলিত স্মারকলিপি জমা দেবেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

সংহতি সমাবেশে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিচালক জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, মেডিকেল পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের বড় প্রমাণ হচ্ছে র‍্যাব হেফাজতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কর্মকর্তার মৃত্যু। প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করতেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে। একজন বিচারপতির সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে এ ঘটনার তদন্ত করতে হবে।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ন্যায়সংগত অভিহিত করে কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, বর্তমানে দেশে অপ্রতিরোধ্য গতিতে ভর্তি জালিয়াতি, প্রশ্নপত্র ফাঁসসহ নানা অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। সরকার এতই অপ্রতিরোধ্য ও শক্তিমান যে,১০ নম্বর পাওয়ার যোগ্য একজনকে ৯৯ নম্বর পাইয়ে দিতে পারে। প্রশ্নপত্র ফাঁস চুরি ডাকাতির মতো একটি ফৌজদারি অপরাধ। এই অপরাধে জড়িতদের চোর ডাকাতের মতো শাস্তি দিতে হবে।

সৈয়দ আবুল মকসুদ আরও বলেন, দ্বিতীয় ফৌজদারি অপরাধ হচ্ছে প্রশ্ন ফাঁসের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নির্যাতন। প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের আড়াল করতে যদি র‍্যাব হেফাজতে ইউজিসি কর্মকর্তার মৃত্যু হয়ে থাকে, তবে সেটি হবে তৃতীয় ফৌজদারি অপরাধ। এসব অপরাধের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হতে হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বলেন, ইউজিসি কর্মকর্তা হত্যার পেছনে কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য রয়েছে। রাঘব বোয়ালরা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত। মৃত্যুর আগে ইউজিসি কর্মকর্তা র‍্যাবের কাছে যে বক্তব্য রেখেছেন শিগগির তা জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে।

সংহতি সমাবেশে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার, বুয়েটের শিক্ষক হাসিব চৌধুরী, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী, প্রগতিশীল চিকিৎসক ফোরামের আহ্বায়ক মুজিবুল হক, চিকিৎসক ফয়জুল হাকিম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা বহুদিন ধরে চলে আসছে। তার বিরুদ্ধে সরকার সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না। দেশব্যাপী যে সর্বগ্রাসী দুর্নীতি চলে আসছে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা তারই অংশবিশেষ।’

জনস্বাস্থ্য সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক চিকিৎসক ফয়জুল হাকিম এক বিবৃতিতে বলেন, মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে সরকারের অনেক রাঘব বোয়াল জড়িত থাকার তথ্য গোপন করতে র‍্যাবের হেফাজতে ইউজিসি কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে।

সারাদেশে বিক্ষোভ করবে ছাত্রদল: আন্দোলনরত মেডিকেল ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একমত পোষণ করে ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মামুনুর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান আগামীকাল দেশের সব বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন।

শেয়ার করুন