গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পরিবহনেও পড়বে : সমন্বয়ের আশ্বাস মন্ত্রীর

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পরিবহনেও পড়বে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর বিএমএ অডিটরিয়ামে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পরিবহনেও পড়বে। আমরা বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)কে বলবো- স্টক হোল্ডারদের সঙ্গে কথা বলে এ মূল্যবৃদ্ধি যেন সহনীয় পর্যায়ে থাকে। সরকারের সবাইকে একইভাবে কথা বলা উচিৎ।’

তিনি বলেছেন, ‘গ্যাস-বিদ্যুতের ভর্তুকি এমন পর্যায়ে ঠেকেছিল যে তা অর্থনীতির ওপর প্রভাব পড়ছিল। যার ফলে আপতকালীন এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী কখনই জনগণের স্বার্থের বিঘ্ন ঘটে এমন পদক্ষেপ নেননি। পরবর্তীতে সব ঠিক হয়ে গেলে তিনি তা বিবেচনা করবেন।’

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু নিজেই নিজেকে প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। বঙ্গবন্ধুর ভবিষ্যৎ নিয়ে আমাদের হতচকিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। আমি আমাকে প্রচার করবো, সেই জন্য বঙ্গবন্ধুর ছবি প্রকাশ করছি। বঙ্গবন্ধুর ছবি প্রকাশ করার দরকার নেই। এ নাম মহাকালের কলমে ইতিহাসে লেখা হয়েছে। সেই নাম কারো লেখার প্রয়োজন নেই। নিজেকে প্রকাশ করতে গিয়ে তাকে খাটো না করি।’

রাজধানীর বিভিন্ন অলিগলি ও রাজপথে ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বিলবোর্ড সম্পর্কে বলেন, ‘আমি আসার পথে ৫১ জনের ছবি দেখেছি বঙ্গবন্ধুর পাশে। কেন এই ছবি? আপনারা পাশে না থাকলে বঙ্গবন্ধুর মর্যাদা খাটো হয়ে যাবে! আসলে লক্ষ্য হচ্ছে আপনাদের আত্মপ্রকাশ। এ থেকে বিরত থাকুন। তরুণদের কাছে আমার বিশেষ অনুরোধ বিলবোর্ড নিয়ে আসুন ‘নো দুর্নীতি, নো সন্ত্রাস’। কিছু লোক আছে বঙ্গবন্ধু ব্যাপার না, ওই এলাকায় তার মাতুব্বরি করতে হবে। ছাত্রলীগকে এগুলো বন্ধ করতে হবে। যারা এগুলো করে তাদের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগকে ব্যবস্থা নিতে হবে। অপ্রয়োজনীয় রাজনৈতিক সব বিলবোর্ড সেপ্টেম্বরেই সরিয়ে নিতে হবে।’ এ জন্য তিনি ছাত্রলীগের সহযোগিতা কামনা করেন।

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনার কতো অর্জন। আমাদের অপকর্ম দিয়ে তার এই অর্জন যেন ঢেকে না দেই। অপকর্ম করে যারা অর্জন ঢেকে দিতে চাইবে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই দলকে ব্যবস্থা নিতে হবে। গুটিকয়েক ছাত্রলীগের জন্য অপমান হচ্ছে, এটা যেন না হয়। এ জন্য ছাত্রলীগকে জিরো টলারেন্স থাকতে হবে।’

সংগঠনের সভাপতি তানভীর রহমান জয়ের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শেখর, আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির, ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি শাহজাদা মহিউদ্দিন, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ প্রমুখ।

শেয়ার করুন