বাংলাদেশে অর্থায়ন বাড়াবে বিশ্বব্যাংক

প্রকাশিত

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : চলতি অর্থবছরে প্রতিশ্রুত ১৯’শ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থ ছাড়করণসহ আগামীতে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশে অর্থায়ন বাড়াবে। বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট কেলি পিটারস বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে এক বৈঠকে এ আশ্বাস দেন।

পেরুর লিমায় আইএমএফ-বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক সভার সাইডলাইনে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। রোববার বিশ্বব্যাংকের আবাসিক কার্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত আইএমএফ-বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ‘৫০ নয়, বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশকে ২৫ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা দিতে পারে।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংকের কাছে ৫০০ মিলিয়ন ডলার চেয়েছিলাম। তারা ২৫০ মিলিয়ন ডলার দিতে পারে।’

গত বছর অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্ব ব্যাংক-আইএমএফের বার্ষিক সম্মেলনে চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জন্য বাজেট সহায়তা নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত হয়। সে সময় বাংলাদেশ বিশ্ব ব্যাংকের কাছে ৫০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা চেয়েছিল।

এর ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সরকার এবং বিশ্ব ব্যাংক কর্মকর্তাদের কয়েক দফা বৈঠকও হয়। গত মাসে বিশ্ব ব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যানেট ডিক্সনের ঢাকা সফরের সময়ও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। শনিবারের বৈঠকে ডিক্সনও উপস্থিত ছিলেন।

মুহিত বলেন, “বিশ্ব ব্যাংক দীর্ঘদিন পর আমাদের বাজেট সহায়তা দিতে চাচ্ছে; আমরাও আগ্রহ দেখিয়েছি। আশা করছি সেটা পাব এবং চলতি অর্থবছরেই তা ব্যবহার করতে পারব।”

বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে অর্থায়ন করলেও ২০০৮ সালের পর থেকে কোনো বাজেট সহায়তা দেয়নি।

বৈঠকে চলতি অর্থবছরে প্রতিশ্রুত ১৯’শ কোটি ডলার এবং ছাড় হওয়া প্রায় এক’শ কোটি ডলারসহ বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন সম্প্রসারণের বিষয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও তারা বাংলাদেশে কর-রাজস্বসহ অর্থনীতির বিভিন্ন খাতের সংস্কারের বিষয়ে আলোচনা করেন। বৈঠকে কেলি পিটারস বাংলাদেশ সফরে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

শেয়ার করুন