বাগেরহাটে পুরুষের নবজাতক সন্তান!

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের শরনখোলায় পুরুষের সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার খবরে উৎসুক জনতা নবজাতককে দেখতে হাসপাতালে ভীড় করেন। সবাই হাসপাতালে এসে দেখে অবাক হন যে, ভ্যান চালক নাজমুল ইসলাম একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান জম্ম দিয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, নাজমুল শার্টপ্যান্ট পরা দেখতে কিশোর আর মাথায় ছেলেদের মতো চুলের কাটিং হলেও আসল নাম তার নাজমা আক্তার। বর্তমান বয়স ১৫ বছর। পেটের দায়ে বছর দুই আগে নিজের নাম গোপন করে নাজমুল ইসলাম নাম নিয়ে ছেলের ছদ্মবেশে রিকশা-ভ্যান চালাতে শুরু করে নাজমা। কিন্তু শরনখোলা উপজেলার খোন্তাকাটা গ্রামের মৃত আ. খালেকের মেয়ে নাজমা আক্তার ওরফে নাজমুল জীবন সংগ্রামে হেরে গিয়ে এক লম্পটের লালসার শিকার হয়ে এখন সে কুমারী মা। মঙ্গলবার ভোরে বাগেরহাটের শরণখোলা হাসপাতালে সে একটি কন্যা সন্তান জম্ম দেয়।

শরনখোলা উপজেলা সদর রায়েন্দা বাজারের হার্ডওয়ার ব্যাবসায়ী রফিকুলের লালসার শিকার হয়ে অন্তঃসত্তা হয়ে পড়ে নাজমা। একথা বহুবার বলা হলেও রফিকুল তাকে গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। সোমবার সন্ধ্যায় প্রসব বেদনা নিয়ে হাসপাতালে ছুটে আসে নাজমা। ভোরে ফুটফুটে একটি কন্যা সন্তান জম্ম দেয় সে।

পুরুষের পেটে সন্তান হয়েছে, এ খবর ছড়িয়ে পড়লে সকাল থেকে দূরদূরান্ত থেকে হাসপাতালে ছুটে আসে শত শত লোক। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এদের সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়।

এদিকে এ ঘটনায় লম্পট রফিকুল ইসলাম তালুকদারকে (৩৮) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সে উপজেলা সদরের রায়েন্দা বাজারের হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী। রফিকুল উপজেলা সদরের মৃত শামছু তালুকদারের ছেলে।

শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি নাজমা বলেন, ‘চার বছর বয়সে আমার বাবা মারা যায়। মা মরিয়ম বেগম বছর পাঁচেক আগে অন্যত্র বিয়ে করে আমাকে ছেড়ে চলে যায়। সব হারিয়ে আমার আশ্রয় হয় বৃদ্ধা দাদীর কাছে। এরপর গত এক বছর ধরে জীবিকার তাগিদে রিকশা-ভ্যান চালানোর কঠিন সংগ্রামে নেমে পড়ি। কোনো উপায় না পেয়ে পেটের দায়ে মানুষরূপী পশুদের হাত থেকে বাঁচতে আমি পুরুষের ছদ্মবেশ ধারণ করি। নিজের নাম পাল্টে নাজমুল ইসলাম রাখি। তারপরও নিজেকে রক্ষা করতে পারিনি।’ এসময় সে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে।

শরনখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. অসীম কুমার সমাদ্দার জানান, ‘নাজমা ও তার মেয়ে সুস্থ আছে। পুরুষ ছেলের সন্তান হয়েছে এমন খবর ছড়িয়ে পড়ায় সকাল থেকে শত শত মানুষ হাসপাতালে ভিড় করছে। এখন ভীড় সামলাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে।’

শরনখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেজাউল করিম জানান, ‘নাজমার স্বীকারোক্তি মতে ওই রাতেই থানায় একটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে মামলার আসামি লম্পট রফিকুলকে গ্রেফতার করে বাগেরহাট আদালতে পাঠানো হয়েছে।’