‘ভালো হয়ে যাওয়ার আশ্বাসে’ ২৫ মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দিল পুলিশ

মেহেরপুর প্রতিনিধি : মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাজিপুর সীমান্তবর্তী এলাকার ২৫ মাদক ব্যবসায়ীকে ‘নৈতিক জীবন-যাপন ও ভালো হয়ে যাওয়ার আশ্বাসে’ ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে পুলিশ। সোমবার কাজিপুর ইউনিয়ন পরিষদ সভাকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে ২৫ অপরাধী পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত মুচলেকা দেন। নিরাপদ ও সুস্থ জীবনের স্বপ্ন দেখছেন এখন তারা।

সম্প্রতি মাদক ব্যবসায়ীদের মাইক্রোবাস থামাতে গিয়ে তাদের হাতে নির্মমভাবে নিহত হন পিরতলা পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশ কনস্টেবল আলা উদ্দীন। এর পর থেকে পুলিশের নিয়মিত অভিযানের পাশাপাশি মাদক ও মাদক ব্যবসা নির্মূলে গাংনী থানা পুলিশ অভিযান শুরু করে। ধরা পড়ে কয়েকজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। অভিযানে কোণঠাসা হয়ে পড়ে মাদক ব্যবসায়ী ও তাদের সঙ্গীরা। এক পর্যায়ে স্থানীয় কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি ও গাংনী থানার ওসি আকরাম হোসেনের মাধ্যমে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশ সুপার হামিদুল আলমের কাছে মাদক ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আকুতি জানান। পুলিশ সুপার তাদের আবেদনে সাড়া দিয়ে ভাল হওয়ার সুযোগ দেন। এর ধারাবাহিকতায় সোমবার ইউপি সম্মেলন কক্ষে এক ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

গাংনী থানার আয়োজনে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মুহা. আলম হুসাইন। প্রধান অতিথি ছিলেন মেহেরপুর পুলিশ সুপার হামিদুল আলম।। তিনি বলেন, আজ  থেকে যারা সর্বনাশা মাদক ব্যবসা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসলেন, তাদের সবাইকে পুলিশের পক্ষ থেকে সহায়তা দেওয়া হবে। যেসব মাদক ব্যবসায়ী এ পথে আসবেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পুলিশ সুপার হামিদুল আলমের কাছে প্রতিজ্ঞা করে এলাকার চিহ্নিত ২৫ ব্যক্তি মাদক ব্যবসা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার অঙ্গীকার করেন। মাদক ব্যবসা না করা, মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলাসহ বিভিন্ন বিষয় উল্লেখ করে লিখিত মুচলেকা দেন তারা।

মাদক ব্যবসা ছাড়ার ঘোষণা দানকারীদের মধ্যে রয়েছেন- কাজিপুর গ্রামের বেছের আলীর ছেলে জালাল উদ্দীন, নুর নবীর ছেলে রতন, ওয়াহেদ আলীর ছেলে মজিবার রহমান, সিরাজ আলীর ছেলে হাতেম আলী, আলীম উদ্দীনের ছেলে মজনু, রহিদুলের ছেলে ঝন্টু, মৃত উজির আলীর ছেলে শরিফুল, কিয়ামত আলীর ছেলে আব্দুল হালিম, সাইক আলীর ছেলে মোজাম, নিজাম, মোজাম আলীর ছেলে রুবেল, আব্দুস কুদ্দুসের ছেলে আওয়াল হোসেন, আজিত আলীর ছেলে টুটুল, সোনাতন আলীর ছেলে শিপন, বজলুর ছেলে সাজু, আব্দুস সামাদের ছেলে টবলু, নবীর উদ্দীনের ছেলে দবির উদ্দীন, উজির আলীর ছেলে রফিকুল, হাড়াভাঙ্গা গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে লাবলু, রহিম বক্সের ছেলে খবির উদ্দীন ও নুর বক্সের ছেলে মাদুর আলী।

গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকরাম হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক রেজাউল হক, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন, জেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক সোহেল আহম্মেদ, কাজীপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু নাতেক, কাজীপুর ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল আলম স্বপন, কে.এল.এস.এইচ বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক কেতাব আলী, গাংনী উপজেলা যুবলীগের দফতর সম্পাদক আব্দুল আলীম ও ইউপি সদস্য মহিবুল ইসলাম। বক্তব্য রাখেন এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। পুলিশ সুপার হামিদুল আলমের এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন সর্বস্তরের মানুষ। তারা এই সামাজিক আন্দোলন অব্যাহত রাখার দাবি জানান ।